শেষ দিনে অনলাইনে ৩১১ কোটি টাকার পশু বিক্রি

প্রকাশিত: জুলাই ২১, ২০২১

রাত পোহালেই ঈদুল আজহা। ঈদ উপলক্ষে সরাসরি ও অনলাইন উভয় মাধ্যমে কোরবানির পশু বেচাকেনা হয়। প্রথমবারের মতো এবার অনলাইন প্লাটফর্মে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ কোরবানির পশু বিক্রি হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ অফিসের দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত ১৯ দিনে সাড়ে ২৭০০ কোটি টাকার বেশি পশু বিক্রি হয়েছে। পশুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে প্রায় চার লাখ। প্রায় ১৮০০ অনলাইন হাটে গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়াসহ কোরবানিযোগ্য পশুর ছবি আপলোড হয়েছে ১৮ লাখের বেশি। গত মঙ্গলবার (২০ জুলাই) একদিনে পশু বিক্রি হয়েছে ৩১১ কোটি টাকার উপরে।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের কোরবানিযোগ্য পশু বিক্রয় কার্যক্রম অগ্রগতির প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

প্রাণিসম্পদ অফিস জানায়, এ পর্যন্ত (মঙ্গলবার সন্ধ্যা) মোট পশু বিক্রি হয়েছে ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৫৭৯টি। যার বিক্রয় মূল্য ২ হাজার ৭৩৫ কোটি টাকা ১১ লাখ ১৫ হাজার ৬৭৮ টাকা। এর মধ্যে গরু ও মহিষের সংখ্যা ২ লাখ ৯৬ হাজার ৭১০টি ও ছাগল এবং ভেড়া রয়েছে ৯০ হাজার ৮৬৯টি। গত মঙ্গলবার একদিনে পশু বিক্রি হয়েছে ৩১১ কোটি ১ লাখ ৭৯ হাজার ৪২৪ টাকা, পশুর সংখ্যা ছিল ৩৮ হাজার ১৫১টি। ১ হাজার ৭৬৮টি অনলাইন বাজারে মোট ছবি আপলোড হয়েছে ১৮ লাখ ১২ হাজার ২০২টি। এর মধ্যে গরু-মহিষ ১৪ লাখ ৭৭ হাজার ৮৪০টি ও ছাগল এবং ভেড়ার সংখ্যা ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৩৬২টি।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের দেওয়া তথ্যে দেখা যায়, অনলাইনে পশু বিক্রিতে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে চট্টগ্রাম বিভাগ। এ বিভাগে মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৬৯ হাজার ২১১টি পশু বিক্রি হয়েছে, যার বাজারমূল্য ১ হাজার ১৬৫ কোটি ৬৬ লাখ ৩৪ হাজার ৪০০ টাকা। এর পরে রয়েছে ঢাকা বিভাগ। এ বিভাগে এখন পর্যন্ত ৬৩ হাজার ৪২টি পশু বিক্রি হয়েছে ৬২৮ কোটি ৬৮ লাখ ৫৪ হাজার ৩৫২ টাকায়।

রাজশাহী বিভাগে ৫৮ হাজার ৯৫০টি পশু বিক্রি হয়েছে ৩৫৪ কোটি ১১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৮ টাকায়। খুলনা বিভাগে ২৫ হাজার ৯৬১টি কোরবানির পশু বিক্রি হয়েছে ১৭১ কোটি ১৬ লাখ ৫২ হাজার ৫০০ টাকায়। বরিশাল বিভাগে চার হাজার ২৬১টি গবাদি পশু বিক্রি হয় ২৮ কোটি ৫৯ লাখ ৩০ হাজার ৪০০ টাকায়।

সিলেট বিভাগে ছয় হাজার ৭৪৫টি কোরবানির পশু বিক্রি হয় ৩৬ কোটি ৫৪ লাখ ২৯ হাজার ৯০৮ টাকায়। রংপুর বিভাগে ৬৭ হাজার ৫৮২টি পশু বিক্রি হয়েছে ৩২৭ কোটি ৯৬ লাখ ৭৮ হাজার ৫৯০ টাকায়। ময়মনসিংহ বিভাগে দুই হাজার ৪২৭টি পশু বিক্রি হয়েছে ২২ কোটি ৩৭ লাখ ৮২ হাজার ৪৬০ টাকায়।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সম্প্রসারণ শাখার পরিচালক ডা. দেবাশীষ দাশ জানান, প্রতিদিনই অনলাইনে পশু বিক্রির পরিমাণ বাড়ছে। অনলাইন বাজার মূলত খামারি ও ক্রেতাদের মধ্যে একটা মেলবন্ধন তৈরি অন্যতম ভূমিকা রাখছে। কোনো খামারি চাইলে স্থানীয় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের পশু অনলাইনে বিক্রি করতে পারেন। এছাড়া খামারিদের যে কোনো তথ্য প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তারা সরবরাহ করছেন।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের খামার শাখা সূত্র জানায়, সারাদেশে চলতি বছর কোরবানিযোগ্য এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টি পশু প্রস্তুত রয়েছে। গত বছর প্রস্তুত ছিল ১ কোটি ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০টি পশু। আর কোরবানি উপলক্ষে জবাই করা পশুর সংখ্যা ছিল ৯৪ লাখ ৫০ হাজার ২৬৩টি। অবশ্য এর আগের বছরে এক কোটি চার থেকে পাঁচ হাজার পশু জবাই হয়েছে।