ফেসবুকে পণ্য বিক্রি করতে লাগবে নিবন্ধন

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২২

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যখন-তখন আইডি খুলে শাড়ী ও গয়নাসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য বেচাকেনা করা হচ্ছে। এতে গ্রাহকরা প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। এই প্রতারণা বন্ধে ই–কমার্স খাতে নিবন্ধন পদ্ধতি চালু হতে যাচ্ছে।

ই–কমার্স খাতের ব্যবসা করতে গেলেই এখন ইউনিক বিজনেস আইডেন্টিফিকেশন (ইউবিআইডি) নম্বর নিতে হবে। ফেসবুক ব্যবহার করে যারা ব্যবসা করবেন, তাদেরও ইউবিআইডি নম্বর লাগবে।

রোববার (০৬ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে ইউবিআইডি অ্যাপসটির উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। এখানে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ।

এছাড়াও বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান মাসুদ বিশ্বাস, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, ই–কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইক্যাব) সভাপতি শমী কায়সার, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির, পুলিশের সিআইডি, এসবি, ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, ডাক অধিদপ্তরসহ মোট ১৬টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

ইউবিআইডিসহ নিবন্ধিত অনলাইন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তা নিষ্পত্তির জন্য চালু করা হবে সেন্ট্রাল লজিস্টিক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিসিএমএস)। কাল ইউনিক আইডি উদ্বোধনের পর এটি চালু হলে রেজিস্ট্রেশনবিহীন কোনো কোম্পানি আর অনলাইনে ব্যবসা করতে পারবে না।

কেন্দ্রীয় ডিজিটাল কমার্স সেলের প্রধান ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ডিজিটাল কমার্স ব্যবসার সার্বিক পর্যালোচনার পর ইউবিআইডি অ্যাপসের উদ্বোধন করা হবে।

সূত্রে জানা গেছে, ইউবিআইডি উদ্বোধনের পর কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে নম্বর দেওয়া হতে পারে। পরে নিবন্ধন দেওয়ার পুরো কাজ করবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের নিবন্ধকের পরিদপ্তর (ডিজেএসসি)। পরিদপ্তর হওয়ার আগে এ প্রতিষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত নাম ছিল আরজেএসসি। ইউবিআইডির কারিগরি দিক দেখার দায়িত্বে আছে এসপায়ার টু ইনোভেট (এটুআই)। তিন মাস ধরে কাজ চলার পর সম্প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করার জন্য অ্যাপসটি প্রস্তুত করা হয়েছে।